বৃহস্পতিবার, ২৮শে মে, ২০২০ ইং ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনার টিকা : প্রাথমিক পরীক্ষায় ‘সফল’ মডার্না

news-image

অনলাইন ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ কোম্পানি মডার্নার তৈরি নতুন করোনাভাইরাসের টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগে প্রাথমিকভাবে ইতিবাচক ফল পাওয়া গেছে। বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

মডার্না দাবি করেছে, যে আট জনকে পরীক্ষামূলকভাবে টিকাটি প্রয়োগ করা হয়েছিল তাদের প্রত্যেকের শরীরে ‘নিউট্রালাইজিং অ্যান্টিবডি’ তৈরি হয়েছে। এমন মাত্রায় এই অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে যা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হওয়া ব্যক্তিদের শরীরে তৈরি হয়।

আগামী জুলাই মাসে আরও বৃহদাকারে টিকাটির পরীক্ষামূলক প্রয়োগের কথা ভাবছে মডার্না। এই পরীক্ষায় দেখা হবে, টিকাটি প্রকৃতপক্ষে মানুষকে নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে পর্যাপ্ত সুরক্ষা দিচ্ছে কিনা।

মডার্নার চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. টাল জাকস সোমবার সিএনএনকে বলেছেন, সামনের পরীক্ষাগুলোতেও সঠিক ফল এলে আগামী জানুয়ারি নাগাদ এই টিকা সর্বসাধারণের জন্য বাজারে আসতে পারে।

বিশ্বব্যাপী নজিরবিহীন দ্রুততায় করোনাভাইরাসের টিকা আবিষ্কারের কাজ চলছে। প্রায় ৮০টি দল বা গোষ্ঠী এই টিকা তৈরির কাজে যুক্ত রয়েছে।

তবে গত মার্চে করোনাভাইরাসের টিকার প্রথম পরীক্ষামূলক প্রয়োগ শুরু করে যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানি মডার্না। যুক্তরাষ্ট্র সরকারের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিসের তত্ত্বাবধানে টিকাটির পরীক্ষামূলক প্রয়োগের কার্যক্রম চলছে।

প্রাথমিকভাবে টিকাটির পরীক্ষামূলক প্রয়োগ কার্যক্রমে অংশ নেন ৪৫ জন স্বেচ্ছসেবী। তবে তাদের মধ্যে আট জনকে টিকাটি দেওয়া হয় এবং তাদের প্রত্যেকের শরীরেই ভাইরাস প্রতিরোধী ‘নিউট্রালাইজিং অ্যান্টিবডি’ তৈরি হয়েছে।

‘নিউট্রালাইজিং অ্যান্টিবডি’ ভাইরাসকে আটকে ফেলে এবং সেটিকে মানুষের শরীরে আক্রমণের জন্য বিকল করে দেয়।

মডার্না জানিয়েছে, টিকাটির উচ্চ, মাঝারি ও নিম্ন- এই তিন মাত্রার ডোজ স্বেচ্ছাসেবীদের শরীরে প্রয়োগ করা হয়েছিল। উচ্চ মাত্রার ডোজটিতে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছিল। নিম্ন মাত্রার ডোজে সেই অ্যান্টিবডি তৈরি হয় যা ভাইরাস থেকে সেরে ওঠা ব্যক্তির শরীরে পাওয়া যায়। আর মাঝারি ডোজে অ্যান্টিবডির মাত্রা সেরে ওঠা ব্যক্তির শরীরে তৈরি হওয়া অ্যান্টিবডির মাত্রাকে ছাড়িয়ে যায়।

যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় করোনাভাইরাসের টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করেছে। যদিও আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও এর প্রাথমিক ফলাফল জানা যায়নি। যুক্তরাষ্ট্রের মডার্না ও অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও আরও পাঁচটি টিকা পরীক্ষামূলক প্রয়োগের পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তার মধ্যে একটি যুক্তরাষ্ট্রের ও বাকি চারটি চীনের প্রতিষ্ঠান।