বুধবার, ১লা এপ্রিল, ২০২০ ইং ১৮ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

টাকার মাধ্যমেও করোনাভাইরাস ছড়াতে পারে! বিজ্ঞানীদের ব্যাখ্যা

news-image

অনলাইন ডেস্ক : নভেল করোনাভাইরাস একটি মারাত্মক ছোঁয়াচে ও দ্রুত বিস্তারে সক্ষম ভাইরাস। চীনের উহান শহরে উৎপত্তির পর আড়াই মাস হওয়ার আগেই ভাইরাসটি বিশ্বের ৮০টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ছুঁইছুঁই। যে কারণে কিভাবে আর কোন মাধ্যম ধরে এ প্রাণঘাতী ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে তা নিয়ে আতঙ্ক এখন জনমনে।

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সম্পর্কে বিজ্ঞানীরা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, মোবাইল ফোনের স্ক্রিনের মতো কঠিন পদার্থ এ ভাইরাস সংক্রমণের একটি সম্ভাব্য মাধ্যম।

এবার যে আতঙ্ক ছড়িয়েছে তাহলো – টাকা লেনদেনের মধ্য দিয়েও ছড়াতে পারে করোনাভাইরাস!

কেননা বাজারে আসার পর বাতিল হয়ে যাওয়া অবধি মানুষের হাত ঘুরে ঘুরেই পরিচালিত হয় টাকা। আর টাকায় নানা ধরনের জীবাণুর উপস্থিতি শনাক্ত করার ঘটনা নতুন নয়। এমনকি ব্যাংক নোটের মাধ্যমে সংক্রামক নানা রোগ ছড়িয়ে পড়ার কথাও বলেন বিশেষজ্ঞরা।

টাকায় মলমূত্রের জীবাণু থাকে বলে বাংলাদেশের একদল গবেষকের গবেষণায় প্রকাশ পেয়েছে।

বাজারে প্রচলিত টাকা ও কয়েনে এক হাজারের চেয়ে আরো অনেক বেশি মাত্রায় ব্যাকটেরিয়ার ই -কোলাই জাতীয় ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি পেয়েছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞানের ছাত্রী নিশাত তাসনিম।

ফলে টাকা বা কয়েনের মাধ্যমে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কাকে মোটেই উড়িয়ে দেয়া যায় না।

সত্যি কি টাকা বা কয়েনের মাধ্যমে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঘটতে পারে?

এ বিষয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞানের শিক্ষক অধ্যাপক ড. আবদুল্লাহ হারুন চৌধুরী বলেছেন, ‘এটাই স্বাভাবিক। আমাদের গবেষণায় টাকা ও কয়েনে বিভিন্ন ধরনের হাজারো ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি পেয়েছি, যা মানুষের অন্ত্রে নানা ধরনের রোগ সৃষ্টি করে। তাই এর মাধ্যমে কভিড-১৯ ছড়িয়ে পড়াটা অস্বাভাবিক নয়। বরং আমরা মনে করছি এ ভাইরাস ছড়াতে টাকা একটি অন্যতম মাধ্যমও হতে পারে।’

তিনি যোগ করেন, ‘টাকা বা ডলারের আন্তর্জাতিক বিনিময়ের মাধ্যমে করোনাভাইরাস শুধু একটি দেশের মধ্যে নয় বরং বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়তে পারে এবং এটি মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে।’

এর ব্যাখ্যায় তিনি বলেন, ‘মানুষ সরাসরি হাত দিয়ে টাকা ধরে। অনেক সময় মুখের থুথু নিয়ে টাকা গুণে। তাই এর মাধ্যমে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে।’

তিনি জানান, ‘ভাইরাস বাহকের শরীরে সক্রিয় হয় কিন্তু অন্যত্র নিষ্ক্রিয় থাকে। টাকায় থাকলে এটি নিষ্ক্রিয় থাকে। কিন্তু মানুষের সংস্পর্শে এলে সেটি করোনাভাইরাসের উপসর্গ বা রোগের সৃষ্টি করতে পারে। তাই করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাবে টাকা ও কয়েন ব্যবহারে বেশ সতর্ক থাকতে হবে আমাদের।‘

মূদ্রার মাধ্যমে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হতে পারে এমন আশঙ্কা প্রার্দুভাবের শরুতেই করেছে চীন। ফেব্রুয়ারি মাসে ভাইরাসে উপস্থিতি নিয়ে টাকা বা ব্যাংক নোট জীবাণুমুক্ত করার একটি উদ্যোগ নেয় চীনে।

সম্প্রতি ভাইরাসটির বিস্তার ঠেকাতে বাজার থেকে ব্যাংক নোট সরিয়ে নিয়ে তা আবার জীবাণুমুক্ত করে বাজারে ছেড়েছে দেশটি।

এমন পরিস্থিতিতে প্রযুক্তি ব্যবহার করে কেনাকাটা করতে পরামর্শ দিচ্ছে জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)।

এছাড়া টাকা গোনার সময়হাতে গ্লোভস পরা, থুকু ব্যবহার থেকে বিরত থাকা ও টাকার স্পর্শের পর সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলার পরামর্শ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। সূত্র: বিবিসি