বৃহস্পতিবার, ১৩ই আগস্ট, ২০২০ ইং ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আজ পহেলা ফাল্গুন নয় যে কারণে

news-image

অনলাইন ডেস্ক : পহেলা বৈশাখের পর বাঙালি পহেলা ফাল্গুন নিয়ে সবচেয়ে বেশি মাতামাতি করে। সাধারণত প্রতি বছর পহেলা ফাল্গুন হয়ে আসছিল ইংরেজি ১৩ ফেব্রুয়ারি। এরপরের দিন ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে বা বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। পর পর দুই উৎসবকে ঘিরে মেতে উঠতো তরুণ-তরুণীরা। এবার থেকে আর দুই দিনে দুই উৎসব নয়, ১৪ ফেব্রুয়ারিই হবে পহেলা ফাল্গুন।

মূলত সরকারি সিদ্ধান্তের কারণেই পিছিয়ে গেছে পহেলা ফাল্গুন। গত বছর বাংলা বর্ষপঞ্জি সংশোধন করেছে সরকার।

গত বছর মন্ত্রিপরিষদের সভায়, ২০২০ সালের সরকারি ছুটির তালিকার অনুমোদন দেওয়া হয়। গত বছরের ৩০ অক্টোবর ছুটির তালিকা প্রজ্ঞাপন আকারে প্রকাশ করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

ওই প্রজ্ঞাপনে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ ও ১৬ ডিসেম্বরের মতো ঐতিহাসিক দিবসগুলোর সঙ্গে সঙ্গতি রেখে বাংলা বর্ষপঞ্জিতে সংশোধন আনা হয়েছে। এক্ষেত্রে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ও বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মজয়ন্তীও বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে।

সংশোধিত বাংলা বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী, বাংলা বৈশাখ থেকে আশ্বিন পর্যন্ত প্রথম ছয় মাস হবে ৩১ দিনে। কার্তিক থেকে মাঘ মাস হবে ৩০ দিনে আর ফাল্গুন মাস হবে ২৯ দিন। তবে গ্রেগরীয় পঞ্জিকার অধিবর্ষ ধরে ফাল্গুন মাস ২৯ দিনের পরিবর্তে ৩০ দিন গণনা করা হবে। সে হিসাবে পহেলা বৈশাখ আগের মতোই ১৪ এপ্রিল থাকবে। আর বসন্তের প্রথম দিন ধরা হচ্ছে ১৪ ফেব্রুয়ারিকে।

এ জাতীয় আরও খবর

ব্যক্তি-গোষ্ঠীর স্বার্থে যেন শোক দিবসের পরিবেশ বিনষ্ট না হয় : কাদের

যেখানে সেখানে ইন্ডাস্ট্রি গড়ে তোলা যাবে না : অর্থমন্ত্রী

হাত জীবাণুমুক্ত করে ঘুষ নেওয়া ওসি স্ট্যান্ড রিলিজ!

এক জায়গায় রাস্তা তিনবার কাটতে পারবেন না : তাপস

‘মহামারীতেও বাংলাদেশের অর্থনীতির ইতিবাচক উন্নতি’

সিনহা হত্যা : আসামিদের রিমান্ডে পায়নি র‌্যাব

বাসায় জুম মিটিং করলে আপ্যায়ন ব্যয় লাগবে কেন, বললেন পরিকল্পনামন্ত্রী

তামাকের অবৈধ বিজ্ঞাপন আর পুরস্কার-প্রনোদনায় সয়লাব রংপুর

সেব্রিনা ফ্লোরা স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক

রিজেন্ট ও জেকেজি সম্পর্কে তথ্য দিয়েছেন স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজি

বিমানবন্দরে আরও স্ক্যানার বসাবে এনবিআর

কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে ‘বিচলিত’ ছিলেন সাবরিনা