বুধবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনা সংক্রমিত জাহাজ থেকে তরুণীর আকুতি

news-image

অনলাইন ডেস্ক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে চীনের হুবেই প্রদেশে মৃতের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। গতকাল বুধবার এই ভাইরাসে একদিনেই ২৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। চীনের মূল ভূখণ্ডের বাইরে বিশ্বের ২৮টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। এমনকি প্রমোদতরীতেও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এবার সেই জাহাজ থেকে বাড়ি ফেরার আকুতি জানিয়েছেন ভারতীয় এক তরুণী।

ভারতের সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস সংক্রমণের জেরে গত ৩ ফেব্রুয়ারি থেকে জাপানের ইয়োকাহামায় আটকে রয়েছে প্রমোদতরী ‘ডায়মন্ড প্রিন্সেস’। এখন পর্যন্ত সেই জাহাজে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৭৫ জন। এই পরিস্থিতিতে ভারতের এক নিরাপত্তা কর্মকর্তা ভারত সরকারের কাছে সাহায্য চেয়ে আর্জি জানিয়েছেন।

গত সোমবার থেকে আইসোলেশনে রয়েছেন সোনালি ঠাকুর নামে ওই কর্মকর্তা। আর্জি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা ভয় পাচ্ছি যদি সংক্রমণ দ্রুত ছড়ায়। এটা দ্রুত ছড়াতে থাকলে আমরাও যে কেউ এতে আক্রান্ত হতে পারি। আমরা এটা চাই না। আমরা কেবল বাড়ি ফিরতে চাই।’

‘ডায়মন্ড প্রিন্সেস’-এ নতুন করে ৩৯ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলেও জানান ২৪ বছরের এই কর্মকর্তা।

সোনালি বলেন, ‘আমরা চাই ভারতীয় সরকার আমাদের ভারতে ফিরিয়ে নিয়ে যাক এবং সেখানে আইসোলেট করে রাখুক। আর তা না হলে অন্তত বেশি করে মেডিকেল স্টাফদের পাঠান, যাতে এখানকার লোকেরা সাহায্য পান পরীক্ষা চালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে। আমরা বাড়ি যেতে চাই।’

তিনি জানান, তার পরিবার তার জন্য উদ্বিগ্ন। তারা চাইছেন ঘরের মেয়ে দ্রুত ঘরে ফিরে আসুন।

সোনালি আরও বলেন, ‘ওরা (সোনালির অভিভাবক) দিন-রাত আমার জন্য প্রার্থনা করছে। ওদের তরফ থেকে এইটুকুই কেবল করতে পারে ওরা। এবং আমি ওদের বলতে চাই শক্ত থাকতে, সতর্ক থাকতে। তোমাদের মেয়ে তোমাদের কাছে দ্রুতই ফিরে আসবে।’

ওই প্রমোদতরণীতে ১৬০ জন ভারতীয় ক্রু সদস্য রয়েছেন বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। কয়েক দিন আগে বিনয়কুমার সরকার নামে উত্তরবঙ্গের এক শেফও সোশ্যাল মিডিয়ায় আবেদন করেন সরকারের প্রতি। তিনি বলেন, ‘যেকোনো ভাবে আমাদের রক্ষা করুন যত দ্রুত সম্ভব। আমাদের কিছু হয়ে গেলে কী হবে? আমি ভারত সরকারের উদ্দেশে বলতে চাই, মোদিজি, প্লিজ আমাদের পৃথক করে রাখার ব্যবস্থা করুন ও নিরাপদে বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করুন।’

এদিকে, টোকিওর ভারতীয় দূতাবাস জানিয়েছে, তারা নিয়মিত পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে। জাহাজটিতে সর্বমোট ৩ হাজার ৭০০ জন যাত্রী রয়েছেন।